করোনাভাইরাসচাটমোহর

“মানবতার সেবক” সংগঠন এর উদ্যোগে চাটমোহরের বিভিন্ন পয়েন্টে সচেতনতামূলক ব্যানার স্থাপন

আজ (২৩ জুন) মঙ্গলবার চাটমোহর এর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ, এবং লোক সমাগম বেশী, এমন স্থানে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় মানুষ দের সচেতন করতে এবং মাস্ক ব্যাবহারের প্রয়োজনীয়তা বুঝাতে সচেতনতামূলক ব্যানার স্থাপন করেছেন ‘মানবতার সেবক’ নামের একটি সংগঠন।

তাঁরা চাটমোহরে করোনাভাইরাসের আগমন এর শুরু থেকেই, ত্রাণ দেওয়া থেকে শুরু করে, পরবর্তীতে মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ, শতর্ক করা, হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রদান করা, অসহায় দের মাঝে ঈদ উপহার পৌঁছে দেয়ার মত নানা ধরণের সমাজসেবামূলক কাজ করেছেন।

এখন যখন আমাদের প্রিয় চাটমোহরে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে, তবুও রাস্তা-ঘাটে চলাফেরা করা সিংহ ভাগ মানুষের মুখে মাস্ক এর দেখা মিলছেনা। এই অবস্থায় এলাকাবাসীদের মাস্ক এর উপকারিতা জানাতে এবং সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে “মানবতার সেবক” এর আজকের কর্মসূচী।

সরেজমিনে উপস্থিত থাকার সুবাদে আজকে তাঁদের সংগঠনের একজন সদস্যের মতই তাঁদের কার্যক্রমগুলো কাছে থেকে দেখার সৌভাগ্য আমার হয়েছে।

কোথায় লোক সমাগম বেশী হয়, কোথাকার মানুষ তুলনামূলক কম সচেতন, ব্যানার কোথায় স্থাপন করলে সকলের নজরে আসবে, ব্যানার স্থাপন করার পর পরিস্কার ভাবে সেই লেখাগুলি দেখা যাচ্ছে কি না, এমন বিভিন্ন ধরণের আলোচনার মাধ্যমে আজ তাঁদের কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

ব্যানার এর একটি ছবি নিচে দেওয়া হলোঃ

ছবিঃ আবির সাহা

ব্যানার স্থাপন এর সাথে সাথেই মানুষ অতি আগ্রহের সাথে সেখানে থাকা তথ্য পড়তে দেখা গিয়েছে, এবং প্রয়োজনে “মানবতার সেবক” সংগঠনের সদস্যদের এই বিষয়ে প্রশ্ন করতেও দেখা গিয়েছে।

এর পাশাপাশি পথচারী, রিক্সা/ভ্যান চালক, মোটরসাইকেল আরোহী দের মাঝে যারা মাস্ক পরিহিত ছিলেন না, তাঁদের কে মাস্ক পরিধান করতে উৎসাহ দিতে, মাস্ক ব্যাবহার এর উপকারীতা সম্পর্কে জানাতে দেখা গিয়েছে সংগঠনের সদস্যদের।

জীবন নগর বাজার(হাজারো মানুষের নতুনবাজার যাওয়ার পথ), শাহী মসজিদ এর সম্মুখে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর সামনে, নতুনবাজার জার্দিস মোড়ে, চাটমোহর পুরাতরন বাজার এর মাছের বাজারে, ষ্টার মোড়, কাটাখালী বাজার এর মত গুরুত্বপূর্ণ স্থানে এই ব্যানারগুলো স্থাপন করা হয়।

পুরাতন বাজারের মাছের বাজারে ব্যানার স্থাপন করার সময় হঠাৎ মৌমাছিদের আক্রমণের সামনে পড়তে হয় তাঁদের। দুইজন সদস্য আহত হন, তবুও থেমে যায়নি তাঁদের মানবসেবা!

তরুণদের এ ধরণের সমাজসেবামূলক কাজকে সাধুবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

সম্পূর্ণ লেখাটি পড়ুন

এই ধরনের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close